জাপানিজ ক্যান্ডেলস্টিকঃ রিভার্সাল প্যাটার্ন

জাপানিজ ক্যান্ডেলস্টিকঃ রিভার্সাল প্যাটার্ন

টেকনিক্যাল চার্ট এর মাধ্যমে একজন এনালিস্ট/ট্রেডার এর কাজ হল মার্কেট সাইকোলজির এবং ট্রেন্ড এর পরিবর্তন এর সম্ভাব্য সুত্র খুঁজে বের করা এবং তা থেকে যে ট্রেডিং সুযোগ তার সুবিধা অর্জনের প্রচেষ্টা করা। রিভার্সাল প্যাটার্নই হল এই সকল সুত্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে অধিক সম্ভাবনাময়। সম্ভাবনাময় রিভার্সাল প্যাটার্ন দেখে বুঝতে পারা হতে পারে অনেক বড় ট্রেডিং দক্ষতা। রাস্তায় চলতে গেলে যেমন বিভিন্ন চিহ্ন থাকে তেমনি রিভার্সাল ইঙ্গিতগুলো হল মার্কেট এর ভাষায় পরিবর্তন এর ইঙ্গিত যেমন ” সাবধান ট্রেন্ড এ বা মার্কেট সাইকোলজিতে সম্ভাব্য পরিবর্তন আসার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। জাপানিজ ক্যন্ডেলস্টিক চার্ট এ প্রাইজ এর পরিবর্তন এর বেশ কিছু ইঙ্গিত প্রদান করে নিম্নে সে প্যাটার্নগুলো উল্লেখ্য করা হল এবং তাদের সংক্ষিপ্ত বর্ননা।

হ্যামার এবং হ্যাঙ্গিং ম্যান

হ্যামার এবং হ্যাঙ্গিং ম্যান তিনটি মানদণ্ড দ্বারা চিহ্নিত করা যায়ঃ

০১. এই ক্যান্ডেলগুলোর বডি থাকে সম্পূর্ন ক্যান্ডেল এর উপরের দিকে এবং এর বডি বুল্লিশ/সবুজ বা বেয়ারিশ/লাল যে কোন রঙ্গেরই হতে পারে। 

০২. এই ধরনের ক্যান্ডেল এর নিচের শ্যাডো এর বডির তুলনায় বেশ বড় হয় কমপক্ষে এটি ক্যান্ডেল এর বডির তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ হয়।

০৩. এই ধরনের ক্যান্ডেল এর উপরে কোন ধরনের শ্যাডো থাকবে না, আর থাকলেও তা খুবই সামান্য।

 হ্যামার এবং হ্যাঙ্গিং ম্যান এর মধ্যে পার্থক্য করে যে বিষয়গুলোঃ
০১. হ্যামার অবশ্যই কোন বেয়ারিশ মার্কেট এর পর গঠিত হবে। যেখানে হ্যাঙ্গিং ম্যান গঠিত হবে কোন বুল্লিশ মুভমেন্ট এর পর।

০২. কোন স্বল্প সময়ের প্রাইজ বেয়ারিশ মুব করার পরও যদি হ্যামার গঠিত হয় তারপরও তা যুক্তিযুক্ত। কিন্তু হ্যাঙ্গিং ম্যান এর যুক্তিযুক্ত হতে হলে অবশ্যই কোন একটি বড় বুল্লিশ মুব এর পর গঠিত হতে হবে, সবচেয়ে সঠিক হয় যদি সবচেয়ে উচুর ক্যান্ডেলটিই হয়।

০৩. একটি হ্যাঙ্গিং ম্যান এর নিশ্চিতকরন এর প্রয়োজন রয়েছে, কিন্তু একটি হ্যামার এর জন্য তার প্রয়োজন নেই।

যখন মার্কেট ডাউনট্রেন্ড এ থাকে এবং হ্যামার ক্যান্ডেল গঠিত হয় এর মানে হল বেয়ারগন তাদের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে যা মার্কেট এ ট্রেন্ড পরিবর্তন আভাস প্রদান করে।

বিপরীতভাবে যখন মার্কেট আপট্রেন্ড এ থাকে এবং হ্যাঙ্গিং ম্যান ক্যান্ডেল গঠিত হয় এর মানে হল বায়ারগন তাদের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে যা মার্কেট এ ট্রেন্ড পরিবর্তন আভাস প্রদান করে।

এনগালফিং প্যার্টার্ন 

এনগালফিং প্যার্টার্ন  হল দুটি ভিন্ন রঙের আলাদা ক্যান্ডেল যা বড় রকমের রিভার্সাল এর ইঙ্গিত প্রদান করে থাকে

বুল্লিশ এনগালফিং প্যাটার্ন

বুল্লিশ এনগালফিং প্যার্টার্ন মার্কেট প্রাইজ এর পতন হচ্ছিল তারপর হটাৎ করে পূর্বের রেড ক্যান্ডেল এর বডি সম্পূর্ণরুপে ঢেকে দেয় বা এনগালফ করে নেয় একটি গ্রিন বা বুল্লিশ ক্যান্ডেল। যা সেলিং প্রেসার এর তুলনায় বায়িং প্রেসার এর বৃদ্ধির ইঙ্গিত প্রদান করে।   

বেয়ারিশ এনগালফিং প্যাটার্ন

বেয়ারিশ এনগালফিং প্যার্টার্ন মার্কেট প্রাইজ ছিল উর্ধমূখী তারপর হটাৎ করে পূর্বের গ্রীন ক্যান্ডেল এর বডি সম্পূর্ণরুপে ঢেকে দেয় বা এনগালফ করে নেয় একটি রেড বা বেয়ারিশ ক্যান্ডেল। যা বায়িং প্রেসার এর তুলনায় সেলিং প্রেসার এর বৃদ্ধির ইঙ্গিত প্রদান করে।  

এনগালফিং প্যার্টার্ন এর জন্য তিনটি মানদণ্ডঃ

০১ মার্কেটকে স্পষ্ট আপট্রেণ্ড (বেয়ারিশ এনগালফিং প্যার্টার্ন এর জন্য)  বা ডাউন্ট্রেন্ড (বুল্লিশ এনগালফিং প্যার্টার্ন এর জন্য) প্রতিষ্ঠিত করতে হবে, ছোট আকারে হলেও।

০২. একটি এনগালফিং প্যার্টার্ন এর গঠনে দুটি ক্যান্ডেল জড়িত। দ্বিতীয় ক্যান্ডেল এর বডি অবশ্যই প্রথম ক্যান্ডেল এর বডিকে সম্পুর্নরুপে ঢেকে দিতে হবে ( শেডো/উইকস কে সম্পুর্নরুপে ঢেকে দেয়ার প্রয়োজন নেই)

০৩. দ্বিতীয় ক্যান্ডেল এর বডির রঙ অবশ্যই প্রথম ক্যান্ডেল এর বডির রঙের বিপরীত হওয়া প্রয়োজন। 

ডার্ক ক্লাউড কভা

ডার্ক ক্লাউড কভার

এটিও দুটি ক্যান্ডেল এর স্বমন্বয়ে গঠিত একটি প্যাটার্ন যা কোন আপট্রেন্ড এর পর সংগঠিত হয় এবং রিভার্সাল এর ইঙ্গিত প্রদান করে। দুটি ক্যান্ডেলের প্রথমদিন এর ক্যান্ডেলটি হল বুল্লিশ এবং এর বডির আকারও বেশ বড়। দ্বিতীয় দিন এর ক্যান্ডেল এর ওপেনিং যদিও হয় পূর্বের ক্যান্ডেল এর উপরে কিন্তু ক্লোজ হয় প্রথম দিনের ক্যান্ডেল এর বডির মধ্যেই। দ্বিতীয় দিনের ক্যান্ডেল প্রথম দিনের ক্যান্ডেলের মধ্যে যতটা অধিক পরিমাণ অতিক্রম করে ততই তা উত্তম। জাপানিজগন বলেন যদি দ্বিতীয় ক্যান্ডেল, প্রথম ক্যান্ডেল এর বডির কমপক্ষে ৫০% অতিক্রম না করে তাহলে তাহলে এটি যৌক্তিক বেয়ারিশ সিগন্যাল নয়, সেক্ষেত্রে সিগন্যাল এর জন্য আরও অপেক্ষা প্রয়োজন। 

ডার্ক ক্লাউড কভার এর গুরুত্ব বৃদ্ধি করতে পারে যে বিষয়গুলোঃ

০১. পূর্বের দিনের বুল্লিশ ক্যান্ডেল এর বডির যতটা ভিতরে, দ্বিতীয় দিনের বেয়ারিশ ক্যান্ডেল এর বডি প্রবেশ করবে ততই তা অধিক সম্ভাবনা তৈরি করবে রিভার্সাল এর। ডার্ক ক্লাউড কভার এবং বেয়ারিশ এনগালফিং প্যাটার্ন এর মধ্য বেশ মিল রয়েছে, পার্থক্য হচ্ছে বেয়ারিশ এনগালফিং প্যাটার্ন এ দ্বিতীয় ক্যান্ডেলটি পূর্বের ক্যান্ডেলকে সম্পূর্ণরুপে ঢেকে দেয় কিন্তু  ডার্ক ক্লাউড কভার এ তা দেয় না ৫০% বা তার কিছুটা অধিক ঢেকে দেয়। 

০২. ডার্ক ক্লাউড কভার এর বেয়ারিশ ক্যান্ডেল যদি কোন মেজর রেসিস্টান্স এর উপরে ওপেন হয় কিন্তু ক্লোজ হয় তার নিচে যার তাহলে এর অর্থ হল বায়ার গণ মার্কেট এর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে ব্যর্থ হয়েছে। যা চমৎকার সেল করার সুযোগ তৈরি করে।  

পিয়ারসিং প্যাটার্ন

পিয়ারসিং প্যাটার্ন

অধিকাংশ প্যাটার্ন এর ক্ষেত্রেই বেয়ারিশ প্যাটার্ন এর বিপরীত একটি বুল্লিশ প্যাটার্ন থাকে। তেমনিভাবে পিয়াসিং প্যাটার্ন হল,বেয়ারিশ ডার্ক ক্লাউড কভার এর বুল্লিশ প্যাটার্ন। পিয়ারসিং প্যাটার্ন বেয়ারিশ মার্কেট এ দুটি ক্যান্ডেল এর সমন্বয়ে গঠিত হয়। দুটি ক্যান্ডেলের প্রথমদিন এর ক্যান্ডেলটি হল বেয়ারিশ এবং দ্বিতীয় দিনের ক্যান্ডেলটি হল বুল্লিশ। দ্বিতীয় ক্যান্ডেল এর ওপেনিং হয় পূর্বের ক্যান্ডেল এর নিচে থেকে কিন্তু ক্লোজ হয় প্রথম দিনের ক্যান্ডেল এর বডির মধ্যেই। পিয়াসিং প্যাটার্ন এবং বুল্লিশ এনগালফিং প্যাটার্ন এর মধ্য বেশ মিল রয়েছে, পার্থ্যক হচ্ছে বুল্লিশ এনগালফিং প্যাটার্ন এ দ্বিতীয় ক্যান্ডেলটি পূর্বের ক্যান্ডেলকে সম্পূর্ণরুপে ঢেকে দেয় কিন্তু  পিয়ারসিং প্যাটার্ন এ তা দেয় না ৫০% বা তার কিছুটা অধিক ঢেকে দেয়।পিয়ারসিং প্যাটার্ন এ বেয়ারিশ ক্যান্ডেল এর মধ্যে অনুপ্রবেশ এর পরিমাণ যত অধিক হবে ততই তার বুল্লিশ রিভার্সাল এর সম্ভাবনা বেশি হবে।  

সারসংক্ষেপ

এই প্রতিটি প্যাটার্ন ট্রেডারদের মার্কেট ট্রেন্ড এবং সাইকোলজির পরিবর্তন এর সম্ভাবনার ধারণা প্রদান করে। এই প্যাটার্নগুলোর অর্থ হয় এমন যে মার্কেট এর নিয়ন্ত্রণ যদিও বায়ার বা সেলারদের হাতে রয়েছে কিন্তু কোন মেজর সাপোর্ট বা রেসিস্টেন্স অথবা সাপ্লাই এবং ডিমান্ড এর কোন পরিবর্তন এর ফলে এই নিয়ন্ত্রণ অন্যদের হাতে চলে যাচ্ছে। যদি নিয়ন্ত্রণ বায়ারদের হাতে থাকে তাহলে সেলারগন এই সুযোগের অপেক্ষায় থাকে এবং মার্কেট এ তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা চালায়, একইভাবে যদি  নিয়ন্ত্রণ সেলারদের হাতে থাকে তাহলে বায়ারগন এই সুযোগের অপেক্ষায় থাকে এবং মার্কেট এ তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা চালায়।
একজন ট্রেডার হিসেবে আমাদের প্রয়োজন সম্ভাব্য সেরা সুযোগের অপেক্ষায় থাকা এবং তা আসলে কাজে লাগানোর প্রচেষ্টায় থাকা। তবে ক্যান্ডেল চার্ট এর মাধ্যমে সফল ট্রেডিং ক্যারিয়ার গঠনে ক্যান্ডেল প্যাটার্ন এর সঠিকভাবে বুঝার পাশাপাশি তাদের গঠনের অবস্থান এবং সার্ভিকভাবে রিস্ক এবং রিওয়ার্ড র‍্যশিও সঠিক হওয়া প্রয়োজন। যার জন্য প্রয়োজন ক্যান্ডেল চার্টের সাথে চমৎকার পরিচিতি এবং চার্ট এর সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন। একইভাবে কোন প্যাটার্নই নিশ্চিতভাবে বাই বা সেল এর নিশ্চয়তা প্রদান করে না তাই সঠিকভাবে বুঝে এবং সচেতনতার সাথে ট্রেড করার জন্য পরামর্শ দেয়া হল।