মেটাট্রেডার ৪ ব্যবহার করার নিয়মাবলি

মেটাট্রেডার ৪ এর ব্যবহার করার নিয়মাবলি

মেটাট্রেডার হল ট্রেডিং প্লাটফর্ম, ট্রেড ওপেন,ক্লোজ এবং টেকনিক্যাল এনালাইসিস এর জন্য মেটাট্রেডার ৪ এর ব্যবহার জানা অত্যন্ত জরুরী।। তাই সঠিকভাবে এর সাথে পরিচিতি প্রয়োজন, আমাদের এই আর্টিকেলটি মেটাট্রেডার এর পরিচিতি এবং ব্যবহার নিয়ে। 

মেটাট্রেডার৪

আপনি একাউন্ট এ লগিন করার সাথে সাথে এই উইন্ডোটি দেখতে পাবেন, মেটাট্রেডারে অনেক তথ্য দেখতে পাচ্ছেন, কিন্তু প্রথমেই আপনাকে সকল ধরনের তথ্য সম্পূর্নভাবে জানার প্রয়োজন নেই। 

• উপরেই যে মেনু রয়েছে, তাতে আছে ( File, view, Insert….)

• তারপর চার্ট উইন্ডো

• মার্কেট ওয়াচ

• নেভিগেটর

• টার্মিনাল 

প্রথমেই আপনি হয়তো অনেক কিছুই বুঝে উঠতে পারবেন না বা আপনার মনে অনেক প্রশ্ন উদয় হতে পারে যে কিভাবে মেটাট্রেডার ৪ এর ব্যবহার করবো ? কিভাবে ট্রেড নিব? কিভাবে ক্লোজ করবো এমন আরও অনেক প্রশ্ন, কিন্তু সময়ের সাথে সাথে এই সকল তথ্যের মধ্যে প্রয়োজনীয় গুলো আপনি পেয়ে যাবেন এই আর্টিকেল থেকে, বাকিটা আপনার চর্চার ফলে। 

• কোন উইন্ডোটি আমাকে ওপেন করতে হবে

• কোনটিতে ক্লিক করতে হবে 

• আমার প্রথম পদক্ষেপ কি

• আমি কি শুধুমাত্র ট্রেড ওপেন করতে পারবো এবং টাকা আয় করতে, আমার তো এত তথ্যের প্রয়োজন নেই

• আমি জানি যে বাই সেল করতে হয় প্রফিট এর জন্য, কোথায় সে অপশন এবং কিভাবে তা করতে হবে

• কিভাবে সাপোর্ট এবং রেসিস্টেন্স লাইন আঁকতে হয়। 

এছাড়াও আরও অনেক প্রশ্ন আপনার মনে হতে পারে। মনে হতে পারে এমন কেউ কি রয়েছেন যিনি আমাকে স্টেপসগুলো দেখিয়ে দিতে পারেন। 

আশা করি এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণভাবে পড়ার পর আপনি আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন এবং ব্যবহার কিভাবে করতে হবে তাও শিখে যাবেন। 

কিভাবে মেটাট্রেডার৪ এর ব্যবহার করতে হয় – পরিচিতি

আপনি আমার পূর্বের দুটি আর্টিকেল পড়ে থাকলে কিভাবে একাউন্ট ওপেন করতে হয় এবং মেটাট্রেডার ডাউনলোড করতে হবে তা জানেন। 

যেভাবে আপনি একাউন্ট ওপেন করেছেন তেমনিভাবে নিচের চিত্রের মতো করে খুবই সহজে পদক্ষেপে ডেমো একাউন্টও ওপেন করতে পারেন। কারন এই আর্টিকেলটিতে আমি ডেমো একাউন্ট এত মাধ্যমেই ট্রেড ওপেন এবং ক্লোজ কিভাবে করতে হয় তা দেখাবো। 

ডেমো একাউন্ট এর জন্য বিস্তারিত তথ্য
ডেমো ট্রেডিং একাউন্ট ডিটেইলস

এই আর্টিকেলএ মেটাট্রেডার ৪ আমাদের কি কি অফার করে, কোন উইন্ডোজগুলো অধিক ব্যবহার করতে হয় এবং কোনগুলো নয় তা দেখিয়ে দিবো। 

মেটাট্রেডার৪ ট্রেডিং প্লাটফর্ম এ প্রচুর টুলস রয়েছে যার মধ্যে সব গুলোর ব্যবহার করার প্রয়োজন হয় না। কিছু উইন্ডোজ আপনি শুধুমাত্র অল্প সময়েই ওপেন করবেন কারন ট্রেড ওপেন এবং ক্লোজ করার সময় এগুলোর প্রয়োজন হয় না। 

আমি আপনাকে স্টেপ বাই স্টেপ দেখাবো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো যাতে করে প্লাটফর্মটি খুবই  সচ্ছ এবং পরিষ্কার থাকে। যাতে করে প্রয়োজনীয় টুলসগুলো খুজে পেতে সহজ হয়। 

মেটাট্রেডার ৪ এর ওভারভিউ 

এই আর্টিকেল এর প্রথমে যে ছবিটি দেখেছেন, যখন আপনি মেটাট্রেডার ওপেন করবেন তখন এই উইন্ডোই আপনার পিসিতে দেখতে পাবেন। আমি এই উইন্ডো থেকে এক একটি ভিন্ন ফাংশন এর অংশ গুলো আলাদা করে ব্যখ্যা করবো যাতে করে আপনি  সহজে মেটাট্রেডার ৪ এর ব্যবহার বুঝতে এবং করতে পারেন।

মার্কেট ওয়াচ “Market Watch”

মার্কেট ওয়াচ উইন্ডোতে আপনি ট্রেড করতে পারেন এমন সকল কারেন্সি পেয়ার গুলো প্রদর্শন করে, এই লিস্টটি ব্রোকার ভেদে ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে কারণ সকল ব্রোকার এ সকল পেয়ার থাকে না। তাই ট্রেড শুরু করার পূর্বে আপনার ব্রোকার যে যে পেয়ারগুলো অফার করে তা দেখে নিন যাতে করে আপনার পছন্দের পেয়ার এর মধ্যে থাকে। 

এই উইন্ডোতে তিনটি কলাম রয়েছেঃ-

• কারেন্সি পেয়ার (Symbol)

  •  ট্রেডিং পেয়ার এর লিস্ট 

• বিড প্রাইজ ( Bid Price)  

  •  যে প্রাইজ এ আপনি কোন ট্রেডিং পেয়ার এর বেস কারেন্সি বিক্রয় করতে পারেন।

• আস্ক প্রাইজ 

  •  যে প্রাইজ এ আপনি কোন ট্রেডিং পেয়ার এর বেস কারেন্সি কিনতে পারেন। 

মার্কেট ওয়াচ

যদি আপনি এই উইন্ডোটি রাখতে না চান অথবা নেই কিন্তু আনতে চান তাহলে নিচের চিত্রের মতো করে তা পরিবর্তন করতে পারেন। “View” মেনুর নিচে আপনি উইন্ডো সিলেক্ট অথবা ডিসিলেক্ট করতে পারেন। এছাড়াও আপনার কি-বোর্ড এ শর্টকাট অপশন রয়েছে “Ctrl+M” যার মাধ্যমেও আপনি “Market Watch” দ্রুত রাখতে অথবা মুছতে পারেন। 

মেটাট্রেডার-৪ ভিউ > মার্কেট ওয়াচ

মেটাট্রেডার প্লাটফর্ম ওপেন করার সাথে সাথেই সকল ট্রেডিং পেয়ারগুলো প্রদর্শিত নাও থাকতে পারে, সকল পেয়ারগুলো দেখতে আপনাকে মাউস এর রাইট বাটন এ ক্লিক করে “Show all” অপশন টি বাছাই করতে হবে। আপনি যখনই এটি করবেন তখন দেখবেন ট্রেডিং পেয়ার এর সংখ্যা বেশ বৃদ্ধি পাবে অনেকগুলো ট্রেডিং পেয়ার যেগুলো থেকে আপনি ট্রেডিং এর জন্য পছন্দ করতে পারেন। আবার যদি “Hide All” ক্লিক করেন তাহলে আবার পূর্বের সিমিত সংখ্যার পেয়ারগুলো চলে আসবে। আপনি কি দেখতে চান তা আপনার উপর নির্ভর করবে। আমি সবগুলো রেখে দিচ্ছি।

মার্কেটওয়াচ- সকল কারেন্সি পেয়ার কিভাবে দেখতে পারেন

“Market Watch” সাবমেনু

নিচের চিত্রে আপনি দেখতে পাচ্ছেন যে মার্কেট ওয়াচ উইন্ডোর দুটি সাব মেনু রয়েছে যেমনঃ

• Symbols (সিম্বল) 

• Ticks ( টিকস) 

Symbols ( সিম্বল) 

এই টেব এ আপনি দেখতে পাবেন আপনার ব্রোকার কর্তৃক ট্রেড করার জন্য নির্দিষ্ট কারেন্সি পেয়ারগুলো, এবং বর্তমান সময়ের বিড এবং আস্ক প্রাইজ 

মার্কেট ওয়াচ- টিক চার্ট

টিক চার্ট

ট্যাব “Tick Chart” এ প্রতিটি পিপ এর পরিবর্তন ইসিজি রিপোর্ট এর মতো করে প্রদর্শন করে। এই চার্ট এর ব্যবহার খুব বেশি করা হয় না।

মেটাট্রেডার ৪ এর ব্যবহার – নেভিগেটর

পরবর্তী মেনুটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, মেটাট্রেডার ৪ এ ট্রেডিং এর সময় এর ব্যবহার সকল সময়ই করার প্রয়োজন হয়। 

এই মেনুর অপশন গুলো হলঃ

• একাউন্ট’স 

• আপনার একাউন্ট গুলোর লিস্ট (ডেমো, রিয়েল)

• ফরেক্স ট্রেডিং ইন্ডিকেটর 

• এক্সপার্ট এডভাইসার( EA)

• স্ক্রিপ্ট 

• সার্ভিস 

মেটাট্রেডার৪- নেভিগেটর

আপনার শুরুর সময় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল একাউন্ট অপশনটি, যেখানে আপনার ট্রেডিং একাউন্ট এর লগিন করতে হবে, ট্রেডিং শুরু করার জন্য। 

একাউন্ট এ মাউস রেখে রাইট বাটন এ ক্লিক করে আপনি এর সেটিংস এ পরিবর্তন করতে পারবেন, যদিও এখন কোন পরিবর্তন এর প্রয়োজন হবে না। 

টার্মিনাল 

টার্মিনাল মেনুতে আপনি যে তথ্যগুলো পাবেন তা হচ্ছে 

• আপনার বর্তমান ব্যালেন্স 

• ওপেন অর্ডার গুলো 

• ট্রেডিং হিস্টোরি 

• মেইলবক্স

টার্মিনাল

আরও কিছু তথ্য যার ব্যবহার এর প্রয়োজন হয় শুধুমাত্র বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে। কিন্তু ট্রেডিং এত জন্য এর প্রয়োজন হয় না। সবচেয়ে অধিক যে ট্যাব দুটির ব্যবহার হবে তা হল “Trade” এবং ” History” যেগুলোতে আপনি আপনার চলমান ট্রেড এবং ক্লোজ হয়ে যাওয়া ট্রেড, আপনার ডিপোজিট এবং উইথড্র’স এর তথ্য দেখতে পাবেন। আপনি চাইলে সকল তথ্যগুলো বিস্তারিত রিপোর্ট আপনি আপনার কম্পিউটারে সেব করতে পারেন। 

ট্রেড ট্যাব এ আপনার বর্তমান ব্যালেন্স প্রদর্শন করে, যা দ্বারা আপনি ট্রেডিং করতে পারবেন, আপনার ওপেন অর্ডার এবং এবং পেন্ডিং অর্ডারগুলো দেখতে পাবেন এখানে। 

“Equity” হচ্ছে আপনার চলমান ট্রেডগুলোর বিবেচনায় নিয়ে আপনার প্রফিট বা লস এর হিসেব করে মোট যে ব্যালেন্স প্রদর্শন করে তাই হচ্ছে ইকুইটি। যেমন আপনার ব্যালেন্স যদি হয় ১০০০ ডলার এবং কোন ট্রেড ওপেন করার পর তাতে প্রফিট হয় ১০ ডলার তাহলে আপনার ইকুইটি হবে ব্যালেন্স $১০০০ + প্রফিট $১০ = $১০১০।  তার মানে হচ্ছে আপনার বর্তমান ব্যালেন্স এত সাথে আপনার চলমান লাভ বা লোকসান এর যোগ বা বিয়োগই হল ইকুইটি। 

আপনি আপনার ব্রোকার কর্তৃক সতর্কতা দেয়ার পূর্বে আপনি কতটা ফান্ড লস করতে পারেন। মার্জিন হল এমন একাউন্ট যা ব্রোকার আলাদা করে রাখে যাতে করে আপনি ট্রেড থেকে আপনার সকল টাকা হারিয়ে না ফেলেন। 

উদাহরণ 

নিম্নে চিত্রের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে কিভাবে 

মেটাট্রেডার- টার্মিনাল

উপরের চিত্রে আপনি দেখতে পাচ্ছেন 

• ব্যালেন্স ১০০০ ইউএসডলার

• ইকুইটি ১০০৬.৫০ ইউএসডলার

• মার্জিন ১৫.৬৪ ইউএসডলার

• ফ্রি মার্জিন ৯৯০.৮৬ ইউএসডলার

এখানে একটি চলমান বাই ট্রেড রয়েছে (১১৬৯৯০২৬৪)

আমার একাউন্ট এ যে টাকা রয়েছে তাই হচ্ছে ব্যালেন্স, একটি অর্ডার ওপেন করার পর 

ইকুইটি প্রদর্শন করে, ট্রেড দেয়ার সময় যে ব্যালেন্স থাকে তার থেকে প্রফিট বা লস,  যোগ বা বিয়োগ করে যে মোট ব্যালেন্স পাওয়া যায় তাই হচ্ছে ইকুইটি। আমি যেহেতু একটি ট্রেড ওপেন করেছি যা ৬.৫০ ইউএসডলার প্রফিট প্রদর্শন করছে, তাই ইকুইটি হচ্ছে ১০০০+ ৬.৫০= ১০০৬.৫০ ইউএসডলার।

মার্জিন হল এমন এমাউন্ট যা ব্রোকার সুরক্ষা হিসেবে সংরক্ষণ করে। যদি আমার ইকুইটি ১৫.৬৪ থেকে কমে যায় তাহলে ব্রোকার আমার পজিশন সয়ংক্রিয়ভাবে ক্লোজ করে দিবে। সেখানে যেতে আর কত লস করতে হবে তা প্রদর্শন করে “Free margin” এ। অর্থাৎ ফ্রি মার্জিন আমাদের যে তথ্য প্রদান করে তা হল আর কতটা হারালে আমার একাউন্ট এ সিগন্যাল প্রদান। 

টার্মিনাল সেটিংস 

যদি আপনি আপনার প্রফিট কলামে লাভ/লস কিভাবে দেখাবে তা পরিবর্তন করতে চান তা করতে পারেন যেমন ডলার এর পরিবর্তে সেখানে পিপস, অথবা টার্ম কারেন্সি বা ডিপোজিট কারেন্সি বাছাই করতে পারেন। 

টার্মিনাল সেটিংস

আপনি ইচ্ছে করলে টার্মিনাল উইন্ডো থেকে কিছু কলাম মুছে ফেলতে পারেন। টার্মিনাল মাউসটি রেখে রাইট বাটন এ ক্লিক করুন আপনি অপশনটি দেখতে পাবেন যেখান থেকে আপনি কমাতে পারেন।  

মেটাট্রেডার ৪ এর ব্যবহার-চার্ট উইন্ডো

চার্ট উইন্ডোই সবচেয়ে অধিক তথ্য প্রদান করে ট্রেডিং কারেন্সি পেয়ারগুলোর প্রাইজ সম্পর্কে। প্রতিটি চার্টে অর্ডার ওপেন করার জন্য বাটন থাকে আপনি ট্রেড প্লেস করার পূর্বে লট সাইজ পরিবর্তন করে নিতে পারেন।  প্রথমে যে অবস্থায়ই থাকুক না কেন আপনি ইচ্ছেমতো চার্টে রঙ এর পরিবর্তন করতে পারেন। 

মেটাট্রেডার চার্ট উইন্ডো

মেইন মেনুর ব্যবহার 

মেটাট্রেডার- মেইন মেন্যু

মেইন মেনু আপনাকে বেশ কিছু অপশন প্রদান করে। আমি কিছু গুরুত্বপূর্ণ অপশন চিহ্নিত করেছি। পরবর্তীতে আমি আরও বিস্তারিত আলোচনা করবো কিন্তু প্রথমে অধিক প্রয়োজনীয়গুলো নিয়েই বুঝা জরুরি। 

মেইন মেন্যু এর ব্যবহার

ইনসার্ট মেনু থেকে আপনি বাছাই করতে পারবেন যে কোন ইন্ডিকেটর আপনি চার্টে প্রবেশ করাতে চান।

ইনসার্ট মেন্যু

টুলবার এর কাস্টমাইজ করা

মেইন মেন্যু কাস্টমাইজেশন

আপনি যে কোন টুলবারকে পরিবর্তন করতে পারেন আপনি যেমন চান, যার জন্য আপনাকে শুধুমাত্র ধরে, যেখানে প্লেস করতে চান সেখানে ছেড়ে দিতে হবে৷ আপনি তাদেরকে একই লাইনে রাখতে পারেন বা একটির নিচে অন্যটিও দিতে পারেন। এটি করার জন্য আপনার মাউসটি টুলবার এর বা পাশে ক্লিক করুন তারপর যেখানে প্লেস করতে চান টেনে আনুন। 

প্রতিটি টুলবারও আপনি প্রয়োজনমতো পরিবর্তন করতে পারেন, আপনি নতুন আইকন যোগ করতে পারেন অথবা বাদ দিতে পারেন। আমি কিছুই পরিবর্তন করছি না তবে আপনি সময়ের সাথে সাথে ধীরে ধীরে তা পরিবর্তন করে দেখতে পারেন। এর জন্য আপনাকে মাউস এর রাইট বাটন এ ক্লিক করতে হবে। নিচের ইমেজ এর মতো মেনু প্রদর্শিত হবে। 

টুলবার কাস্টমাইজেশন

এখানে আপনি লিস্ট দেখতে পাবেন যে কি কি আইকন আপনি টুলবারে যোগ করতে পারেন, ডান পাশে যে বাটনগুলো রয়েছে তা হল যা ইতোমধ্যে টুলবার এর মধ্যে রয়েছে। যদি আপনি কোন একটিকে যোগ করতে চান, অথবা বাদ দিতে চান তাহলে আপনাকে সেই আইকনটি বাছাই করতে হবে এবং দুটির একটিতে ক্লিক কর‍তে হবে 

• “Insert” – নতুন কিছু যোগ করতে 

• “Remove”- বাতিল করতে 

সারসংক্ষেপ 

এটিই হচ্ছে মেটাট্রেডার৪ ট্রেডিং প্লাটফর্ম এর গ্লোবাল ওভারভিউ। এখন আপনি জানেন যে শুরু করার জন্য আপনাকে কি কি সম্পর্কে ধারণা রাখা প্রয়োজন। এখন আপনি আপনার মতো করে পরিবর্তন করতে পারেন। আপনাকে যে বিষয়গুলো মনে রাখতে হবে 

• ট্রেডিং লেয়ারগুলার লিস্ট

• আপনার একাউন্টগুলোর অবস্থান কোথায় 

• আপনার বর্তমান ব্যালেন্স কত

• আপনার বর্তমান মার্জিন এবং ফ্রি-মার্জিন কত

• চার্ট যেখানে ট্রেডিং পেয়ার এর প্রাইজ এর সকল তথ্য প্রদর্শন করে।